শ্রমিক-পিঁপড়ের জন্ম-রহস্য

আমাদের আশেপাশে রকমারি পিঁপড়ে দেখতে পাই । এদের বাসস্থান অনুসন্ধান করলে দেখা যাবে – প্রায় অধিকাংশ ক্ষেত্রেই তাতে দুই, তিন বা ততোধিক বিভিন্ন আকৃতির পিঁপড়ে রয়েছে । একই জাতীয় পিঁপড়ের এই আকৃতি-বৈষম্য স্বভাবতই বিস্ময়ের উদ্রেক করে । খুঁটিনাটি বৈষম্য থাকলেও সন্তান, মাতা অথবা পিতার মতো আকৃতি পরিগ্রহ করে থাকে । জীবজগতের এটাই অতি পরিচিত ঘটনা । কদাচিৎ কখনও দু-এক ক্ষেত্রে নিয়মের ব্যতিক্রম ঘটতে দেখা যায়, কিন্তু তার কারণও সুস্পষ্ট । পিঁপড়েদের ক্ষেত্রে কিন্তু মাতা অথবা পিতা থেকে সম্পূর্ণ ভিন্ন আকৃতির সন্তান জন্মগ্রহণ করাটাই স্বাভাবিক নিয়ম । মাতা বা পিতার অনুরূপ সন্তান জন্মগ্রহণ করাটা কতকটা সাময়িক এবং অনেকটা আকস্মিক ব্যাপারের মতো । এক একটা পিঁপড়ের বাসায় সাধারণত চার-পাঁচ রকমের পিঁপড়ে থাকে – কয়েক শত পুরুষ, কয়েক শত রানী এবং কয়েক হাজার কর্মী বা শ্রমিক । আমরা সচরাচর শ্রমিক-পিঁপড়েই দেখে থাকি এবং এদের দেখেই জাতি নির্ণীত হয় । শ্রমিকদের মধ্যে কতকগুলি থাকে মাথা মোটা সৈন্য এবং বাকিগুলি ছোট, বড় ও মাঝারি – এই তিন শ্রেণীতে বিভক্ত । রানীর আকৃতি সাধারণ পিঁপড়েদের তুলনায় অসম্ভব বড় । পুরুষের আকৃতি মাঝারি গোছের । কিন্তু কর্মীরা সর্বাপেক্ষা ছোট এবং পিতা বা মাতার সঙ্গে কোনো আকৃতিগত সামঞ্জস্য দেখা যায় না । পুরুষ বা রানী পিঁপড়েদের প্রত্যেকেরই ডানা আছে ; কিন্তু কর্মীদের কারও ডানা নেই, অথচ বিস্ময়ের বিষয় এই যে, পুরুষ ও রানীর মধ্যে মিলন সংঘটিত হবার পর রানীর ডিম থেকে কেবল এই কর্মী শ্রেণীর পিঁপড়েরাই জন্মগ্রহণ করে থাকে । কি উপায়ে এরূপ অদ্ভূত ব্যাপার সংঘটিত হয়ে থাকে, প্রত্যেকেরই তা জানবার আগ্রহ হওয়া স্বাভাবিক । বিভিন্ন জাতীয় কয়েক প্রকার পিঁপড়ের মধ্যে এরূপ আকৃতিগত বৈষম্য দেখে এক সময় আমারও কৌতূহল অদম্য হয়ে উঠেছিল । ইতিপূর্বে বৈজ্ঞানিকেরা এ সম্বন্ধে অনেক প্রকার গবেষণা করেছেন বটে, কিন্তু কোনও স্থির সিদ্ধান্তে উপনীত হতে পারেন নি ।

কিছুকাল যাবৎ পিঁপড়েদের এই অদ্ভুত প্রজনন-রহস্য উদ্ঘাটনের নিমিত্ত পরীক্ষায় প্রবৃত্ত হয়েছিলাম । পরীক্ষার ফলে এই রহস্য সম্বন্ধে যতটুকু জানতে পেয়েছি, তা মোটামুটিভাবে আলোচনা করবো । প্রথমত কাঠ-পিঁপড়ে নিয়ে কাজ আরম্ভ করেছিলাম । তার পর ক্রমাগত ডেঁয়ো-পিঁপড়ে, বিষ-পিঁপড়ে, সুড়সুড়ে-পিঁপড়ে নিয়ে পরীক্ষা করেও বিশেষ সুবিধা করতে পারি নি । কারণ এই পিঁপড়েরা প্রত্যেকেই মাটির নিচে গর্ত খুঁড়ে বাস করে । বাচ্চা প্রভৃতি মাটির নিচে অন্ধকারেই প্রতিপালিত হয়, বাইরে থেকে দেখবার কোনও উপায় নেই । কৃত্রিম বাসা তৈরি করে তাতে হাজার হাজার পিঁপড়ে প্রতিপালন করে দেখেছি, তারা – রানী, বাচ্চা, ডিম প্রভৃতি অন্ধকারে কোনও কিছুর আড়ালে অতি সংগোপনে রক্ষা করে । কাজেই এদের স্বাভাবিক কার্যপ্রণালী প্রত্যক্ষ করা অতি দুরূহ ব্যাপার । অবশেষে এ বিষয়ে অনুসন্ধান করবার নিমিত্ত লাল-পিঁপড়ে পুষতে আরম্ভ করি । লাল-পিঁপড়েরা গাছের ডালের পাতা পরস্পর জুড়ে গোলাকার বাসা নির্মাণ করে । পাতার ভিতর দিয়ে বাসার ভিতরের অবস্থা দেখা যায় না ; কাজেই কৃত্রিম বাসার সাহায্য নিতে হয়েছিল । অনেক কিছু ব্যর্থ চেষ্টার পর অবশেষে পাতলা সেলোফিন মুড়ে বাসা তৈরি করতে সক্ষম হলাম । পুরুষ, রানী, ডিম ও বাচ্চা সমেত হাজার হাজার পিঁপড়ে বাসায় ছেড়ে দিলাম । তারা সেলোফিন-আবৃত বাসায় উপস্থিত হয়ে ফাটা এবং ফুটা স্থানগুলি বন্ধ করে দিল এবং বিভিন্ন কুঠুরি নির্মাণ করে বেশ সহজভাবেই বসবাস করতে লাগলো । পাতলা সেলোফিনের পর্দার ভিতর দিয়ে পিঁপড়েগুলির কার্যকলাপ প্রত্যক্ষ করতে কোনই অসুবিধা হয় না । বিভিন্ন জাতীয় পিঁপড়েদের আকৃতি এবং প্রকৃতি বিভিন্ন হলেও তাদের সমাজ-ব্যবস্থা এবং প্রজনন ব্যাপারে মোটামুটি একটা সামঞ্জস্য দেখা যায় । কাজেই লাল-পিঁপড়ের সম্বন্ধে আলোচনা করলেই সাধারনভাবে পিঁপড়েদের সামাজিক বিধি-ব্যবস্থার বিষয় অবগত হওয়া যাবে ।

মানুষ সামাজিক প্রাণী । অপেক্ষাকৃত উন্নত শ্রেণীর জীবের মধ্যে মানুষের মতো সমাজ-ব্যবস্থা না থাকলেও মৌমাছি পিঁপড়ে প্রভৃতি নিম্নস্তরের কীট-পতঙ্গের মধ্যে এরূপ সমাজ-ব্যবস্থা প্রচলিত রয়েছে । তাদের সমাজের রীতিনীতি যাতে অক্ষুন্নভাবে নিরুপদ্রবে চলতে পারে, তার জন্যেও একটা স্বাভাবিক অবস্থা অবলম্বিত হয়েছে । মানুষেরা বুদ্ধিমান এবং কৌশলী হলেও পিঁপড়ে অথবা মৌমাছির মতো সুনিয়ন্ত্রিত একটা পাকাপোক্ত সমাজ-ব্যবস্থা গড়ে তুলতে পারে নি । প্রচলিত সমাজ-ব্যবস্থায় মানুষের ব্যক্তিগত স্বার্থসিদ্ধি এবং ব্যক্তিগত প্রাধান্য প্রতিষ্ঠার যথেষ্ট সুযোগ রয়েছে । প্রত্যেকেই সুবিধামত সেই সুযোগের সদ্ব্যবহার করে থাকে । তার ফলেই দাসত্ব প্রথা, বাধ্যতামূলক বেগার খাটা এবং অন্যান্য দুর্নীতিমূলক প্রথার উদ্ভব ঘটেছিল । স্বার্থান্বেষী ও প্রভুত্ব-প্রয়াসী ব্যক্তিরা অস্ত্র-প্রয়োগে মানুষের প্রজনশক্তি নষ্ট করে নিজেদের সুখসুবিধা বিধানের নিমিত্ত কায়েমীভাবে এক ধরনের শ্রমিকশ্রেণী উৎপাদনে অগ্রসর হচ্ছিল । কিন্তু যে কারণেই হোক তাদের এই প্রচেষ্টা অধিক দূর প্রসার লাভে সক্ষম হয় নি । যা হোক, মানুষের প্রয়োজনে আজ পর্যন্তও গৃহপালিত পশুপক্ষীর উপর এ ব্যবস্থা অবাধে প্রযুক্ত হচ্ছে । উদ্দেশ্য যাই হোক, উপায়টা যে সম্পূর্ণ নিষ্ঠুরতার পরিচায়ক, সে বিষয়ে কোনই সন্দেহ নেই । শ্রমসাধ্য যাবতীয় কার্যনির্বাহের জন্যে পিঁপড়েরা কিন্তু অতি সহজ উপায়ে এরূপ একপ্রকার শ্রমিকশ্রেণী উৎপাদন করবার উপায় আয়ত্ব করে নিয়েছে । মনুষ্য কর্তৃক অবলম্বিত উপায় অপেক্ষা তাদের উপায় যে সহস্র গুণে শ্রেষ্ঠ, এ কথা অস্বীকার করবার উপায় নেই । স্বার্থান্বেষী, পুঁজিবাদী, প্রভুত্বপ্রয়াসী মানুষেরা যদি পিঁপড়েদের অবলম্বিত কৌশলের মতো এমন কোনও সহজসাধ্য উপায় আবিষ্কারে সক্ষম হতো, তবে তার প্রভাবে পৃথিবীর অশিকাংশ মানুষই  হয়তো বংশানুক্রমে কায়েমী শ্রমিকশ্রেণীতে পরিণত  হতো  । প্রভুর তুষ্টিবিধান ও স্বার্থ রক্ষা ছাড়া তাদের ব্যক্তিগত স্বার্থ বলে কোনও  কিছুরই অস্তিত্ব থাকতো  না । কৃত্রিম বাসার মধ্যে হাজার হাজার পিঁপড়ে প্রতিপালন করে বছরের পর বছর তাদের আচার-ব্যবহার যা প্রত্যক্ষ করেছি, তা থেকে এই ধারণাই বদ্ধমূল হয় ।

আগেই বলেছি, এক-একটা পিঁপড়ের বাসায় কয়েক শত রানী, কয়েক শত পুরুষ এবং হাজার হাজার কর্মী বা শ্রমিক পিঁপড়ে দেখা যায় । রানী এবং পুরুষ পিঁপড়েরা কোনও কাজই করে না, কেবল অলসভাবে বাসার মধ্যে এদিক-ওদিক ঘুরে বেড়ায় মাত্র । শ্রমিকরা রানী ও পুরুষকে সর্বপ্রকার সেবা-যত্ন করে থাকে । শ্রমিকেরা খাবার সংগ্রহ করে পুরুষ ও রানীদের মুখের কাছে তুলে ধরে । আহারান্তে একাধিক শ্রমিক মাইল গাত্র মার্জনা করে দেয় এবং অবসরমত তাদের প্রসাধনে ব্যাপৃত হয় । ডিম পাড়বার সময় হলেই হাজার হাজার কর্মী-পিঁপড়ে তার আপাদমস্তক আড়াল করে অপেক্ষা করতে থাকে । সে সময় শ্রমিকেরা রানীর যেরূপ সেবাযত্ন করে থাকে, তা দেখলে বিস্ময়ে অবাক হয়ে যেতে হয় । একটির পর একটি করে ডিম বেরিয়ে আসতে আরম্ভ করলেই শ্রমিকেরা সেগুলিকে অতি যত্ন সহকারে মুখে তুলে নিয়ে একটা নির্দিষ্ট কুঠুরিতে সাজিয়ে রাখে । অন্য এক দল শ্রমিক তখন ডিমের তদারকে নিযুক্ত হয় । তারা ডিম ছেড়ে কোথাও নড়ে না । দু-এক দিনের মধ্যেই ডিম ফুটে বাচ্চা বের হয় । এক-একটি কর্মী এক-একটি বাচ্চা প্রতিপালনের ভার গ্রহণ করে । এগুলিকে খাওয়ানো, পরিষ্কার করা, উন্মুক্ত স্থানে বেড়িয়ে আনা প্রভৃতি যাবতীয় কাজ শ্রমিকেরাই করে থাকে । পুরুষ বা রানীরা কোনও কাজেই বিন্দুমাত্র অংশগ্রহণ করে না । এরা বহু দূর দূরান্তর থেকে খাদ্য সংগ্রহ করে বাসায় নিয়ে আসে এবং পুরুষ ও রানীকে শ্রেষ্ঠাংশ খাওয়াবার পর অবশিষ্ট অংশ সকলে মাইল ভাগাভাগী করে খায় । এদের সঞ্চয়ের অভ্যাস নেই । যা সংগৃহীত হয়, তাই খেতে শুরু করে দেয় । যদি খাদ্যের অনটন ঘটে তবে যৎসামান্য যা সংগৃহীত হয়, তা থেকে প্রথমে বাচ্চাগুলিকে খাওয়ায় এবং পরে পুরুষ ও রানীকে খাইয়ে যা অবশিষ্ট থাকে তা নিজেরা ভাগাভাগী করে খায়, নচেৎ অনাহারে থেকেই প্রয়োজনীয় কাজকর্ম চালিয়ে যায় । অনাহার সহ্য করে মৃত্যু বরণ না করা পর্যন্ত এরা নিজের কর্তব্যকর্মে বিন্দুমাত্র শৈথিল্য প্রকাশ করে না ।

শত্রুর আক্রমণে ভীত হয়ে হয়তো বাচ্চা মুখে করে কোনো নিরাপদ স্থানে আশ্রয় গ্রহণ করতে ছুটছে, সেই সময় দেহের অঙ্গ-প্রত্যঙ্গ – এমন কী, অর্ধাংশ দ্বিখন্ডিত করে দিলেও বাচ্চাকে মুখ থেকে ফেলে দিয়ে নিজের প্রাণ বাঁচাবার চেষ্টা করে না । শত্রু-কবলিত বাচ্চা, রানী অথবা পুরুষ পিঁপড়েকে উদ্ধার করবার জন্যে নিষ্ফল প্রচেষ্টায়ও কেউ জীবন দিতে কিছুমাত্র ইতস্তত করে না । দু-একটি ব্যতীত অধিকাংশ ঘটনা দেখে জীবনের প্রতি এদের সত্য-সত্যই কোনো মমত্ববোধ আছে কিনা সন্দেহ হয় । এদের কোনও চালকও নেই বা কার্য-বন্টনও কেউ করে দেয় না । যখন যার প্রয়োজন উপস্থিত হয়, সংস্কারবশেই যেন সে কার্যে আত্মনিয়োগ করে এবং সুশৃঙ্খলার সঙ্গে তা সম্পন্ন করে । এদের মধ্যে কঠিন বা সহজ বলে কোনও কাজের বিচার নেই । কঠিনই হোক, কী সহজই হোক প্রয়োজন উপস্থিত হওয়া মাত্র এরা নির্বিচারে সমস্ত শক্তি প্রয়োগ করে । শত্রু প্রবলই হোক, কী দুর্বলই হোক, নাগালের মধ্যে আসামাত্রই সমস্ত শক্তি দিয়ে নির্বিচারে তাকে আক্রমণ করবে । একটা কাঠি বা এক টুকরো ইঁট কাছে আনামাত্রই তাকে প্রানপণে কামড়ে ধরবে এবং ভারী হলে তা টেনে তুলতে না পারলেও সেই নিরীহ ইঁটের টুকরোটা মুখে করে সারা দিন ঝুলে থাকবে- এমনই কর্তব্যপরায়ণ এবং বিশ্বস্ত এরা ।

বাসা বাঁধবার সময় কর্মীদের অক্লান্ত পরিশ্রম করতে দেখে বিস্ময়ে অবাক হয়ে থাকতে হয় । লাল-পিঁপড়েরা একটির পর একটি পাতা জুড়ে গাছের ডালে গোলাকার বাসা নির্মাণ করে । শত শত কর্মী একযোগে কাছাকাছি অবস্থিত দুটি পাতা টেনে ধরে পরস্পর সংলগ্ন করে রাখে । আর এক দল কর্মী বাচ্চা মুখে করে সে স্থানে উপস্থিত হয় এবং বাচ্চার মুখনিঃসৃত সুতার সাহায্যে পরস্পর সংলগ্ন পাতা দুটিকে জুড়ে দেয় । এভাবে অনেক পাতা জুড়ে ক্রমশ একটি বড় বাসা গড়ে তোলে । অনেক সময় দেখেছি- হাজার হাজার পিঁপড়ের একত্রিত হয়ে এক সঙ্গে গাছের পাতা জুড়ে টেনে ধরে রয়েছে । সুতা বোনা শেষ হলে কর্মীরা একে একে সেই টানা ছেড়ে দিতে থাকে । কিন্তু পরীক্ষার উদ্দেশ্যে একবার সুতা-বোনা পিঁপড়েগুলিকে অগ্রসর হতে দেওয়া হলো না । কৌশলে তাদের গতিরোধ করা হলো । এদিকে কর্মীরা পাতা টেনে ধরেই আছে । এক দিন, দু’দিন করে ক্রমাগত কয়েক দিন অতিক্রান্ত হয়ে গেল, তথাপি পাতার টানা ছাড়বার কোনই লক্ষণ দেখা গেল না । অনাহারজনিত দুর্বলতায় দু’একটা করে পিঁপড়ের কামর ছেড়ে নিচে পড়ে যেতে লাগলো । কিন্তু অন্য পিঁপড়ে এসে তৎক্ষনাৎ তাদের স্থান পূরণ করতে লাগতে লাগলো । কিন্তু সুতা বোনবার সুযোগ আর এলো না । এথেকেই পিঁপড়েদের স্বভাবের দৃঢ়তার এবং কর্তব্য-নিষ্ঠার পরিচয় পাওয়া যায় ।

জিতকে টুকরো টুকরো করে ফেলে । অনেক সময় দেখা যায়- বিজেতার পায়ে অথবা শুঁড়ে পরাজিতের মস্তক অথবা দেহের প্রথমার্থ ঝুলে রয়েছে । পরাজিত যে মরণ-কামড় দিয়েছিল, মৃত্যর পরেও তা ছাড়ে নি । তাছাড়া দেখা যায়, শরীরের কতকাংশ সমেত তা বিজেতার শরীরে আঁকড়ে রয়েছে । বিজেতাকে আমরণ এভাবে শত্রুর দেহাংশ বয়ে নিয়ে বেড়াতে হবে । কর্মীদের এই যে কর্তব্যপরায়ণতা, দৃঢ়তা এবং পুরুষ ও রানীর প্রতি সেবাপরায়ণতা – এই সকল প্রবৃত্তির বিকাশ হলো কেমন করে ? অথচ এরা নিজের সুখদুঃখ সম্বন্ধে অনেকটা উদাসীন – এটাই বা সম্ভব হলো কিরূপে ? তাছাড়া আর একটা বিস্ময়ের বিষয়ে এই যে, এদের প্রজননক্ষমতা নেই কিন্তু কোনও কারণে বাসার শ্রমিকের সংখ্যা হ্রাস পেতে থাকলে অথবা রানীর অভাব ঘটলে এই শ্রমিক দলের মধ্যে থেকে দু-একটি, যৌনসম্পর্ক ব্যতীতই ডিম পাড়তে আরম্ভ করে এবং এই প্রকার ডিম থেকে কেবলমাত্র শ্রমিকই জন্মগ্রহণ করে । একটি কথা জানা দরকার যে পিঁপড়েদের শ্রমিকেরা সকলেই স্ত্রী-জাতীয়, কিন্তু অপরিপুষ্ট অর্থাৎ এদের প্রজননযন্ত্র মোটেই পরিপুষ্টি লাভ করে না । তথাপি প্রয়োজনবোধ যৌন-সংসর্গ ব্যতিরেকে ডিম পাড়তে পারে ।

কিন্তু কেমন করে রানীর ডিম থেকে নির্দিষ্ট আকৃতিবিশিষ্ট লক্ষ লক্ষ শ্রমিক পিঁপড়ে জন্মগ্রহণ করে ? পর্যবেক্ষণের ফলে যতদূর জানা গেছে, তাতে দেখা যায় – সাধারণত ফাল্গুন মাসের প্রথম দিক থেকে বাসার মধ্যে রানী এবং পুরুষদের অপরিণত বাচ্চার আবির্ভাব ঘটে । এর পর আষাড়-শ্রাবণ মাস থেকে আবার পুরুষ এবং রানী পরিণত অবস্থায় উপনীত হবার পর বৈশাখ-জ্যৈষ্ঠ মাসে ডানায় ভর করে আকাশে উড়ে যায় । উড়তে উড়তে পুরুষ ও রানীর মিলন সংঘটিত হয় । পুরুষ পিঁপড়েরা আর বাসায় ফিরে আসে না । রানী যে কোনও একটা বাসায় এসে আশ্রয় গ্রহণ করে । তার পরেই তার ডানা খসে যায় এবং কিছুকাল বাদেই ডিম পাড়তে আরম্ভ করে । এই ডিম থেকে যে সকল বাচ্চা হয় তারা সকলেই শ্রমিক শ্রেনীর । পরীক্ষার ফলে দেখা গেছে- রানীর সঙ্গে পুরুষ পিঁপড়ের মিলন ঘটতে না দিলেও রানী ডিম পেড়ে থাকে । কিন্তু সে সকল ডিম থেকে কেবল পুরুষ পিঁপড়েই জন্মগ্রহণ করে । কিন্তু কোনও অবস্থাতেই ডিম থেকে সরাসরি রানী জন্মগ্রহণ করে না । আবার এও দেখা গেছে, বাসা থেকে রানীদের সরিয়ে নিলে কিছু পরেই শ্রমিকদের মধ্যে থেকে দু-একটি বেশ কিছু সংখ্যক ডিম পাড়তে শুরু করে এবং সেই ডিম থেকে শ্রমিক পিঁপড়ে জন্মগ্রহণ করছে । সমস্যা এতে বড়ই জটিল বোধ হলো, কারণ জীবজগতের প্রজনন-প্রক্রিয়ার সাধারণ নিয়মের মধ্যে এদের আনা চলে না ।

বিবিধ পরীক্ষার পরে অবশেষে দেখা গেল যে, পিঁপড়েদের ডিম পর্যন্ত আদিম জৈব-বস্তুর বংশানুবর্তী একটা ধারাবাহিকতা আছে বটে, কিন্তু ডিম ফোটবার পর থেকেই একটা বিশেষ খাদ্যবস্তুর প্রভাবে বাচ্চার আকৃতি এবং প্রকৃতি পরিবর্তিত হতে থাকে । এই খাদ্যবস্তুর পরিমাণের উপর আকৃতি এবং প্রকৃতিগত পরিবর্তন নির্ভর করে । অবশ্য এরও একটা নির্দিষ্ট সীমা আছে । ব্যাপারটা আরও একটু পরিষ্কার ভাবে বুঝিয়ে বলছি । বছরের অধিকাংশ সময়েই বাসার মধ্যে কেবল হাজার হাজার শ্রমিক-পিঁপড়ে দেখতে পাওয়া যায় । শ্রমিকদের দু-একটার ডিম থেকে সেই সময়ে আরও কিছু কিছু শ্রমিক পিঁপড়ে জন্মগ্রহণ করে । পূর্বেই বলেছি, এই পিঁপড়েরা গাছের উপর বাসা বাঁধে এবং সাধারণত গাছের উপরেই ঘোরাফেরা করে থাকে এবং মৃত কীট-পতঙ্গ, পাখির পালক, মাছের কাঁটা প্রভৃতি সংগ্রহ করে জীবনযাত্রা নির্বাহ করে । শীত ঋতুর অবসানে ফাল্গুনের প্রারম্ভে গাছে গাছে নতুন পত্র-পল্লব এবং মুকুলের মধ্যে কয়েক প্রকারের অজস্র গাছ-উকুন আত্মপ্রকাশ করে থাকে । এই সব মুকুল ইং গাছ-উকুনের শরীর থেকে অতি অল্প পরিমাণে মধুর মতো এক প্রকার পদার্থ নিঃসৃত হয়ে থাকে । এই সময়ে পিঁপড়েদের মধু সংগ্রহ করবার মরসুম । তারা প্রায় সকল কাজ পরিত্যাগ করে এই মধুর লোভেই দিনরাত্রি পত্র-পল্লব এবং গাছ-উকুনের মধ্যে অবস্থান করে । এই মধুর মধ্যে ভিটামিন-বি-১ নামক এক প্রকার খাদ্যপ্রাণের অস্তিত্ব আছে । এই মধু খাবার পর শ্রমিক-পিঁপড়েরা বাসায় এসে তা উদ্গীরণ করে বাচ্চাগুলিকে খাওয়ায় । শ্রমিক-পিঁপড়ের অনেকেই পরপর বাচ্চাগুলিকে উদ্গীর্ণ মধু খাওয়াতে থাকে । এক-একটা বাসায় হাজার হাজার বাচ্চা থাকে এবং শ্রমিকদের সংখ্যাও অগণিত; কাজেই কোন কোন বাচ্চাকে কতবার খাওয়ানো হলো, তার কোনো হিসাব ঠিক রাখতে পারে না । এর ফলে কোনো কোনো বাচ্চা প্রচুর পরিমাণে এই খাদ্যপায় আবার অনেকে অতি সামান্য মাত্র পেয়ে থাকে । যারা এই খাদ্য বেশি পরিমাণে পায় তারা অতি দ্রুতগতিতে বর্ধিত হয়ে রানীর আকৃতি পরিগ্রহ করে । যারা মাঝামাঝি পরিমাণে মধু খেতে পায়, তারা পুরুষ-পিঁপড়েতে পরিণত হয় । যারা অতি সামান্য পায় অথবা মোটেই পায় না তারাই বড় এবং ছোট বিভিন্ন রকমের কর্মী বা শ্রমিক রূপে আত্মপ্রকাশ করে । যৌনমিলন ব্যতিরেকে উৎপন্ন পুরুষ এবং মধুর প্রভাবে উৎপন্ন পুরুষ পিঁপড়ের মধ্যে হয়তো কোনও প্রকৃতিগত পার্থক্য বিদ্যমান থাকতে পারে, তবে তা এখনও পরীক্ষাসাপেক্ষ বলে নিশ্চিতরূপে কোনও কথা বলা যায় না । তবে একথা ঠিক যে পত্র-পল্লব এবং গাছ উকুনের দেহনিঃসৃত রসপরিবেশনের তারতম্যানুসারে প্রয়োজনমত রানী এবং কর্মী-পিঁপড়ে উৎপাদন করা যেতে পারে ।মোটের উপর খাদ্য পদার্থের মধ্যে ভিটামিন-বি এবং সেই জাতীয় অন্যান্য কোন পদার্থের অভাবের ফলেই শ্রমিক পিঁপড়ের উৎপত্তি ঘটে থাকে ।

________________
প্রবাসী, শ্রাবণ, ১৩৫১

Facebook Comments
(Visited 5 times, 1 visits today)
 

পাঁচমেশালী

প্রথম চাষীর দল : পাতা কাটা পিঁপড়ে


বিভাগ: বিস্ময়ের জীবজগৎ (2014-10-10)

মানুষ আসার অনেক অনেক আগেই চাষবাস শুরু করে দিয়েছিল কিছু পিঁপড়ের দল ! খাবার তৈরীর জন্য গাছের পাতা কেটে বাসায় নিয়ে গিয়ে কেমনভাবে তারা ছত্রাকের চাষ করে তাই নিয়ে লিখেছেন অনিন্দিতা ভদ্র।

আরো দেখো

 
 

তুমি যদি কোনো নির্দিষ্ট বিষয়ের উপর লেখা পেতে চাও অথবা তোমার যদি এমন কোনো প্রশ্ন থাকে যেটা তুমি কোনো বইতে বা ইন্টারনেটে খুঁজে পাওনি, তাহলে এই ফর্মটির মাধ্যমে আমাদের কাছে প্রশ্ন পাঠাও।

নিয়মাবলী

হোমওয়ার্ক জাতীয় প্রশ্ন পাঠাবে না।

ভালো প্রশ্নের উদাহরণ:

  1. নিউটনের মহাকর্ষ সূত্রে আমরা বিন্দুভর কেন ব্যবহার করি?
  2. গাছ মাটি থেকে জল কিভাবে টানে?
  3. ভাইরাস ব্যাকটেরিয়াকে কিভাবে আক্রমণ করে?

আমরা যে ধরনের প্রশ্নের উত্তর দেব না:

  1. ২ আর ২ যোগ করলে কত হয়?
  2. Autotroph কাদের বলে?

আর তুমি যদি বিজ্ঞানে লেখা পাঠাতে চাও, তাহলে এই ফর্মে প্রশ্ন করার কোনো দরকার নেই। এই পাতাতে লেখা পাঠানোর জন্য সমস্ত তথ্য পাবে: http://bigyan.org.in/oldabout/tosubmitarticles/

তোমার সঠিক ই-মেইল পাঠাও । ভুল ই-মেইল দেওয়া হলে, আমরা উত্তর দেব না।


*
 
*
 
*
 
স্কুলে পড়ি কলেজে / বিশ্ববিদ্যালয়ে পড়ি গবেষণার সাথে যুক্ত শিক্ষক চাকুরিজীবী অন্যান্য

*

 
*
তুমি যদি কোনো না জানা প্রশ্নের উত্তর জানতে চাও তাহলে "প্রশ্নোত্তর" এ ক্লিক কর, আর যদি কোনো বিষয়ে লেখা পেতে চাও, তাহলে "লেখার বিষয়"-এ ক্লিক কর |
প্রশ্নোত্তর লেখার বিষয়
 
*
নীচের বাক্সতে বাংলায় অথবা ইংরেজিতে তোমার প্রশ্ন লেখ।
 
*
পদার্থবিদ্যা (Physics) জীববিদ্যা (Biology) রসায়ন (Chemistry) গণিত (Mathematics) রাশিবিদ্যা (Statistics) Other
 
*
 
*
 
*
 
স্কুলে পড়ি কলেজে / বিশ্ববিদ্যালয়ে পড়ি গবেষণার সাথে যুক্ত শিক্ষক চাকুরিজীবী অন্যান্য

*

 
 
 
*
 
*
 
*
 
স্কুলে পড়ি কলেজে / বিশ্ববিদ্যালয়ে পড়ি গবেষণার সাথে যুক্ত শিক্ষক চাকুরিজীবী অন্যান্য

*

 
 
 

বিজ্ঞান আপডেট

তোমার ইনবক্সে বিজ্ঞানের সাম্প্রতিক খবরাখবর

 

তুমি যদি কোনো নির্দিষ্ট বিষয়ের উপর লেখা পেতে চাও অথবা তোমার যদি এমন কোনো প্রশ্ন থাকে যেটা তুমি কোনো বইতে বা ইন্টারনেটে খুঁজে পাওনি, তাহলে এই ফর্মটির মাধ্যমে আমাদের কাছে প্রশ্ন পাঠাও।

নিয়মাবলী

হোমওয়ার্ক জাতীয় প্রশ্ন পাঠাবে না।

ভালো প্রশ্নের উদাহরণ:

  1. নিউটনের মহাকর্ষ সূত্রে আমরা বিন্দুভর কেন ব্যবহার করি?
  2. গাছ মাটি থেকে জল কিভাবে টানে?
  3. ভাইরাস ব্যাকটেরিয়াকে কিভাবে আক্রমণ করে?

আমরা যে ধরনের প্রশ্নের উত্তর দেব না:

  1. ২ আর ২ যোগ করলে কত হয়?
  2. Autotroph কাদের বলে?

আর তুমি যদি বিজ্ঞানে লেখা পাঠাতে চাও, তাহলে এই ফর্মে প্রশ্ন করার কোনো দরকার নেই। এই পাতাতে লেখা পাঠানোর জন্য সমস্ত তথ্য পাবে: http://bigyan.org.in/oldabout/tosubmitarticles/

তোমার সঠিক ই-মেইল পাঠাও । ভুল ই-মেইল দেওয়া হলে, আমরা উত্তর দেব না।


*
 
*
 
*
 
স্কুলে পড়ি কলেজে / বিশ্ববিদ্যালয়ে পড়ি গবেষণার সাথে যুক্ত শিক্ষক চাকুরিজীবী অন্যান্য

*

 
*
তুমি যদি কোনো না জানা প্রশ্নের উত্তর জানতে চাও তাহলে "প্রশ্নোত্তর" এ ক্লিক কর, আর যদি কোনো বিষয়ে লেখা পেতে চাও, তাহলে "লেখার বিষয়"-এ ক্লিক কর |
প্রশ্নোত্তর লেখার বিষয়
 
*
নীচের বাক্সতে বাংলায় অথবা ইংরেজিতে তোমার প্রশ্ন লেখ।
 
*
পদার্থবিদ্যা (Physics) জীববিদ্যা (Biology) রসায়ন (Chemistry) গণিত (Mathematics) রাশিবিদ্যা (Statistics) Other
 
*
 
*
 
*
 
স্কুলে পড়ি কলেজে / বিশ্ববিদ্যালয়ে পড়ি গবেষণার সাথে যুক্ত শিক্ষক চাকুরিজীবী অন্যান্য

*

 
 
 
*
 
*
 
*
 
স্কুলে পড়ি কলেজে / বিশ্ববিদ্যালয়ে পড়ি গবেষণার সাথে যুক্ত শিক্ষক চাকুরিজীবী অন্যান্য

*

 
 
 

বিজ্ঞান আপডেট

তোমার ইনবক্সে বিজ্ঞানের সাম্প্রতিক খবরাখবর

 
top